Wednesday, 23 October 2019

WBCS Polity and Constitution MCQs Prelims and Mains

General Knowledge in Bengali Collected From Exam Paper P2


Page 2

6. সভা ও সমিতির কাদের দুটি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ছিল ?
(A) ভারতের পাহাড়ী উপজাতি
(B) সিন্ধু উপত্যকা মানুষ
(C) ঋগ্বেদিক আর্য
(D) দ্রাবিড়রা
[WBCS - 2011]

Correct Answer: [C] ঋগ্বেদিক আর্য।
Explanation: বৈদিক সভ্যতার সময়কাল ছিল 1500 B.C. থেকে 500 B.C.। এটি ছিল গ্রামকেন্দ্রিক সভ্যতা। তারা লোহা ও ঘোড়ার ব্যবহার জানতো কিন্তু সিন্ধু সভ্যতার লোকেরা জানতো না। বৈদিক যুগে রাজাকে সহায়তা করার জন্য সভা ও সমিতি প্রতিষ্ঠান গঠনের উল্লেখ পাওয়া যায়।
Add
7. ভারতের সর্বাপেক্ষা প্রসিদ্ধ ইন্দোগ্রীক শাসক কে ছিলেন ?
(A) ডিমিট্রিয়াস
(B) প্রথম অ্যান্টিওকাস
(C) মিনান্দার
(D) উপরের কোনোটিই নয়
[WBCS - 2016]

Correct Answer: [C] মিনান্দার।
Explanation: আনুমানিক 300 B.C. এর দিকে ব্যাকট্রিয়া ও ইরিনীরা স্বাধীন রাজ্য হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে।প্রায় ২০০ B.C. এর দিকে ডিমিট্রিয়াস আফগানিস্থান ও পাঞ্জাব দখল করে এবং প্রতিনিধি আপলোডস ও মিনান্দার কে পরবর্তী রাজ্যবিস্তারের দায়িত্ব দেন। মিনান্দার মথুরা পর্যন্ত রাজ্যবিস্তার করে ও বসুমিত্রর মুখোমুখি হয় । ফলে পাটলিপুত্র জয়করা সম্ভব হয়নি। মিনান্দার বৈদ্ধ সন্যাসী নাগসেনের সংস্পর্শে এসে বৈদ্ধধর্ম গ্রহণ করে।তাদের কথপোকথন মিলিন্দপান্হ গ্রন্থে নাগসেনের দ্বারা লিপিবদ্ধ করা হইছেযেন। মিনান্দার ছিলেন সর্বশ্রেষ্ট ইন্দো-গ্রিক রাজা । তার রাজধানী ছিল সাকোলে (শিয়ালকোট)। অনুমান করা হয় ইন্দো-গ্রিক রাজারাই ভারতে প্রথম স্বর্ণমুদ্রা প্রচলন করে ।
Add
8. ভারতীয় প্রত্নতত্ত্বের জনক কাকে বলা হয় ?
(A) আলেকজান্ডার কানিংহাম
(B) গর্ডন চাইল্ড
(C) মটিমার হুইলার
(D) জন মার্শাল

Correct Answer: [A] আলেকজান্ডার কানিংহাম।
Add
9. বুদ্ধচরিত কার রচিত?
(A) নাগার্জুন
(B) অশ্বঘোষ
(C) বসুমিত্র
(D) বিশাখদত্ত
[WBCS 2019]

Correct Answer: [B] অশ্বঘোষ।
Explanation: অশ্বঘোষের সংস্পর্শে কনিষ্ক বৈদ্ধধর্মে দীক্ষিত হন।তিনি মহাযান বৈদ্ধধর্মের পালন করতেন। তাকে দ্বিতীয় অশোক বলা হয়।অশ্বঘোষ সংস্কৃত ভাষায় বুদ্ধের জীবনকাহিনী বুদ্ধচরিত রচনা করেন। যদিও বেশিরভাগ বৈদ্ধ সাহিত্য ও ধর্মগ্রন্থ পালি ভাষায় লেখা হতো।
Add
10. বৌদ্ধধর্ম মতে, সকল দুঃখের কারণ হল—
(A) মায়া
(B) কাম
(C) তৃষ্ণা
(D) ক্রোধ

Correct Answer: [C] তৃষ্ণা।
Explanation: বৈদ্ধধর্ম মতে সকল দুঃখের কারন হল তৃষ্ণা।তিনি দুঃখের হাত থেকে মুক্তিলাভ ও পরম জ্ঞান অর্জনের জন্য অষ্টাঙ্গিক মার্গ পালন করতে বলেন।তিনি নৈরঞ্জনা নদীর তীরে দিব্যজ্ঞান লাভ করেন ও প্রথম ধর্ম প্রচার করেন সরনাথে। বৈদ্ধধর্মের ত্রিরত্ন হলো বুদ্ধ , ধম্ম ও সংঘ। ধর্মগ্রন্থ ত্রিপিটক যেটি পালি ভাষায় রচিত।
Add


0 Comments:

Post a comment